Magic Lanthon

               

ম্যাজিক লণ্ঠন

প্রকাশিত ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:০০ মিনিট

অন্যকে জানাতে পারেন:

মানুষ ও যন্ত্রের দ্বান্দ্বিক সম্পর্কের কথা বলে ‘অযান্ত্রিক’

ম্যাজিক লণ্ঠন

 

ছবির নাম: অযান্ত্রিক

পরিচালক: ঋত্বিক ঘটক

নির্মাণকাল: ১৯৫৮ সাল, ভারত

সম্পাদনা: রমেশ যোশী

সঙ্গীত পরিচালক: আলি আকবর খান

ব্যাপ্তি: এক ঘণ্টা ৪০ মিনিট

 

ছবিটির কাহিনী গড়ে উঠেছে জগদ্দল নামের একটি গাড়ি নিয়ে। গাড়ির মালিক বিমল। মা-বাবা, স্ত্রী, আত্মীয় প্রিয়জনহীন বিমল ... প্রাণভরে ভালোবাসা দেয় জগদ্দলকে। একটা যন্ত্রের মধ্যে বিমল মানুষের আত্মা আরোপের চেষ্টা করে। এ রকম একটি কাহিনী শেষ পর্যন্ত উত্তীর্ণ হয় মানুষ ও যন্ত্রের দ্বান্দ্বিক সম্পর্কে।    

ঋত্বিক জানান মানুষের একটা অংশ প্রকৃতির মধ্যে গিয়ে পড়েছে, সেটা পশু। আর একটা অংশ সভ্যতার মধ্যে গিয়ে পড়েছে, সেটা যন্ত্র। যন্ত্র ও জন্তুর এ যন্ত্রণাদায়ক সঙ্গমে মানবিক বোধ জন্মায়, অযান্ত্রিক-এ ভাঙ্গারি ব্যবসায়ীরা যখন গাড়ির জঞ্জাল ঠেলে নিয়ে যায়, তখনও হেডলাইট জ্বলতে থাকে, পশুর মতো টলে টলে এগিয়ে যায় ভাঙ্গাচোরা যন্ত্র, ঋত্বিক হেডলাইট জ্বালিয়ে রাখতে বাধ্য করেন। মনে হতে পারে যন্ত্র আর মানুষের জটিল সম্পর্ক মিলে ঋত্বিক এভাবে দুরুহ সাইবারনেটিক্স রচনায় সচেষ্ট হয়েছেন। কিন্তু ঋত্বিক জানেন শেষ পর্যন্ত মানুষ ছাড়া ছবি হয় না, মানুষ ছাড়া পরীক্ষার আর কোনো বিমূর্ত বিষয় নেই, তাই শেষ দৃশ্য একটি শিশুর হাতে গাড়ির ধ্বংসাবশেষ দেখে বিমল হাসিতে মুগ্ধ হন। জীবন এগিয়ে চলে।   

ছবিতে আদিবাসী ওরাঁওদের যে সাংকেতিক নৃত্যের মহাযাত্রা দৃশ্য সন্নিবিষ্ট হয়েছে, ঋত্বিক মনে করেন, তাতে প্রকাশ পেয়েছে জন্ম, শিকারে যাওয়া, বিবাহ, মৃত্যু, পূর্বপুরুষের প্রতি শ্রদ্ধা, পূজা ও নবজন্ম।

ঋত্বিকের মৃত্যুর পর লিখিত শোকপ্রস্তাবে বিশ্বখ্যাত আরেক চলচ্চিত্রকার সত্যজিৎ রায় বলেছিলেন, ‘তার দ্বিতীয় ছবি অযান্ত্রিক যারা দেখেছিলেন তারা ঋত্বিকের অসামান্য বৈশিষ্ট্য ও মৌলিকতার পরিচয় পেয়ে চমৎকৃত হয়েছেন।সংখ্যায় কম হলেও বিবিধ গুণে সমৃদ্ধ ঋত্বিকের ছবিগুলো ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।’

ঋত্বিক নির্মিত অন্যান্য ছবির মধ্যে রয়েছে নাগরিক (১৯৫২), বাড়ি থেকে পালিয়ে (১৯৫৯), মেঘে ঢাকা তারা (১৯৬০), কোমল গান্ধার (১৯৬১), সুবর্ণরেখা (১৯৬২), তিতাস একটি নদীর নাম (১৯৭৩), যুক্তি তক্কো আর গপ্পো (১৯৭৪)।  এছাড়াও তিনি ১০টির মতো তথ্যচিত্র ও স্বল্পদৈর্ঘ্যে চিত্র নির্মাণ করেন।  

 

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন